top of page

পেত্রা- The lost city




ইন্ডিয়ানা জোনস সিরিজের “দ্যা লাস্ট ক্রুসেইড” বা মামি সিরিজের “মামি রিটার্নস” কিংবা ট্রান্সফরমার সিরিজের “রিভেঞ্জ অব দ্যা ফলেন” যে মুভিটির কথাই বলুন, পেত্রা নগরীতে করা দৃশ্যগুলো আপনার মনে curiosity তৈরি করতে বাধ্য, আসলেই কি নগরীটি বাস্তবে আছে নাকি পুরটাই একটা সেট। আর থাকলেই এর পেছনের কাহিনীটাই বা কি?


পেত্রা নামটি গ্রিক শব্দ “petros” থেকে এসেছে বলে মনে করা হয়, যার অর্থ “পাথর” । পাথরের তৈরি বলে এর এমন নামকরণ বলে ধারণা করা হয়। নগরীটিকে আরবি ভাষায় “আল-বুত্তা” বলেও ডাকা হয়। মিশরীয়রা আবার একে “Pel, Sela অথবা Seir” নামে ডাকত। Sela-এর প্রকৃত অর্থ হলো শিলা। জন উইলিয়াম বার্গান এই পেত্রা নগরীকে বর্ণনা করে লিখেছেন, “A rose-red city half as old as time”.


বর্তমান জর্ডানের দক্ষিণ-পশ্চিমের গ্রাম ওয়ারদি ঠিক পূর্বে হুর পাহাড়ের পাদদেশে এই নগরীটি অবস্থিত। ধারণা করা হয় এই অসাধারণ স্থাপত্যশৈলীর নগরীটির গোড়াপত্তন হয়েছিল খ্রিষ্টপূর্ব ৩০০০ বছর আগে। প্রাচীন এই নগরীটিতে ছিল প্রায় ৩০০০ দর্শক ধারণ ক্ষমতার নাট্যশালা, ছিল ১৫০০ দর্শক ধারণ ক্ষমতার স্টেডিয়াম, প্রায় ১০,০০০ স্কয়ার ফিট আয়তনের একটি বিচারালয়, লাইব্রেরী, সৈন্যদের ব্যারাক সহ আধুনিক নগর ব্যবস্থার অনেক কিছুই।



এই বিশাল স্থাপনা এতবছর আগে কিভাবে তৈরী করা হয়েছিল তা নিয়ে এখনো পরিপূর্ণ কোন ধারণা পাওয়া যায়নি। নগরীটি সবথেকে বড় স্থাপণা গুলোর মধ্যে একটি হল, সবচেয়ে বিখ্যাত ‘খাজনেত ফিরাউন’ নামের মন্দিরটি, এটিকে ফারাওদের ধনভাণ্ডার নামেও ডাকা হয়। ধারণা করা হয়, এই স্থাপণা গুলো তৈরি করা হয়েছিল উপর থেকে নিচে পাহাড় কেটে কেটে । অর্থাৎ পাহাড়ের উপর থেকে কেটে কেটে নিচের দিকে আশা হয়েছে। যদিও এটি এখন একেবারে প্রসিদ্ধ কোন মতবাদ নয়।


পেত্রা নগরীটি ছিল অত্যন্ত সুরক্ষিত এবং প্রাচীন পৃথিবীর বাণিজ্যের অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি স্থান। এর মূল কারন মূলত দুইটি। এক – ভৌগলিক ভাবে এর অবস্থান এবং দুই – চারপাশ পাহাড় দিয়ে ঘেরা দুর্ভেদ্য প্রবেশপথ। নগরীটির পশ্চিমের গাজা, উত্তরের বসরা ও দামাস্কাস, লোহিত সাগরের পাশের আকুয়াবা ও লিউস অবস্থিত। যে কারণে পেত্রাই হয়ে উঠেছিল মরুভূমির উপর দিয়ে পারস্য উপসাগরে যাওয়ার একমাত্র বাণিজ্যিক পথ। খ্রিস্টপূর্ব ৩১২-তে আরব আদিবাসী নবটিয়ানরা এই অঞ্চলে বসবাস শুরু করে এবং নবটিয়ান রাজা চতুর্থ এরাটাস পেত্রাকে রাজধানী হিসেবে ঘোষণা করেন। খ্রিষ্টপূর্ব ৪০০ থেকে খ্রিস্টপূর্ব ২০০ অব্দ এটি নাবতাইন রাজ্যের রাজধানী ছিল। বাণিজ্য ব্যবস্থায় এই অঞ্চলে একক আধিপত্য থাকার খুব অল্প সময়েই পেত্রা প্রচুর সমৃদ্ধশালী নগরীতে পরিণত হয়। মূলত আরব ও রোমান লোকেরা তাদের ক্যরাভান নিয়ে যাবার সময় পেত্রাতে এসে থামত এবং এখান থেকে পানি সহ আরোও অন্যান্য জিনিস নিয়ে যেত । পরবর্তীতে রোমানরা সমুদ্র কেন্দ্রিক বানিজ্য ব্যবস্থা গড়ে তুললে পেত্রার দুর্দিন শুরু হতে থাকে।


পেত্রার এই উন্নতি ক্রমেই অন্য দেশের সম্রাটদের নজরে পরতে শুরু করে এবং এর ফলশ্রুতিতেই ১০৬ খ্রিস্টাব্দে রোমান সম্রাট ট্রোজান এর আদেশে রোমান সৈন্যরা পেত্রা দখল করে নেয়। এদিকে দ্বিতীয় ও তৃতীয় শতকের মধ্যে “পামিরা” রা পেত্রার অধিকাংশ বাণিজ্য দখল করে নেয়। এতে পেত্রা অর্থনৈতিকভাবে প্রচণ্ড দুর্বল হয়ে পড়ে। তাছাড়া ৩০৬ খ্রিস্টাব্দের দিকে এক ভূমিকম্পে নগরীটির অধিকাংশ স্থাপণা ক্ষতিগ্রস্ত হয়ে পড়ে।



সপ্তম শতকের দিকে মুসলমানরা পেত্রা দখল করে নেয় কিন্তু দ্বাদশ শতকের দিকে এসে ক্রুসেইডাররা আবার মুসলমানদের কাছ থেকে পেত্রা দখল করে নেয়। এভাবে যুদ্ধ-বিগ্রহ এবং প্রাকৃতিক বিপর্যয়ের মাধ্যমে একসময় নগরটি ধ্বংস হয়ে যায়।


পেত্রার অধিবাসীদের মাঝে খুব একটা ধর্ম বিশ্বাস লক্ষ্য করা যায় না। তবে যেটুকু তথ্য পাওয়া যায় তার মাঝে নাবাতিয়ানরা আরব দেব দেবীদের পূজা করত। তারা দুশরা নামক এক দেবতার পূজা করত, সাথে তিন দেবী আল-উজ্জা, আলাট এবং মানাত এর পুজা করত। এসব দেব দেবীর অনেক মূর্তিই নগরীটির দেয়ালে খোদাই করা অবস্থায় পাওয়া যায়। এছাড়া ও আরো কিছু গবেষণায় দেখা যায় তারা সূর্য দেবতার ও পুজা করত। পেত্রা নগরীর বিভিন্ন অংশে নানা কারুকাজ দেখা যায়। এগুলোতে মূলত আরবীয় এবং রোমান আর্ট এর ছাপ লক্ষণীয়। এছাড়া ও পেত্রা নগরীতে শ্রেণী বিভেদ ছিল । যারা বেশি সম্পদের অধিকারী ছিল তাদের খাবার প্লেট থেকে শুরু করে বাড়ি ঘরে প্রচুর নকশা লক্ষ্য করা যায়। এছাড়া ও সন্ধার পর পেত্রার বাড়িগুলোর সামনে রাস্তার পাশে জ্বলত ব্রোঞ্জের তৈরি এক ধরণের বাতি। যে বেশি ধনী তার বাসার সামনের বাতিগুলো তত উজ্জ্বল এবং কারুকাজ সম্বলিত।


ক্রুসেইড এর পর অনেক বছর পেত্রার কোন খোঁজ পাওয়া যায় না। অবশেষে ১৮১২ সালে সুইস পরিব্রাজক “লুডিগ বারখাট” এই নগরীটিকে পুনরায় পুরো দুনিয়ার সামনে উপস্থাপন করেন। তবে তার এই নগরী পুনরায় খোঁজে পাওয়া এতটা সহজ ছিল না। কারণ প্রথমত তিনি জানতেন না এবং দ্বিতীয়ত নগরীটিতে খোঁজে বের করতে একজন লোকাল গাইডের প্রয়োজন ছিল। আবার তখন ওই অঞ্চলের পরিস্থিতি এমন ছিল যে কোন ফরেনারকে লোকাল গাইডরা সাহায্য করতে চাইত না। তাই তিনি এক অভিনব পথ বেছে নিলেন। নিজের দাড়ি লম্বা করলেন, যাতে তাকে লোকাল লোকজনদের মত মনে হয়। এর পর কিছুদিন পার হলে সে জর্ডান থেকে একজন লোকাল গাইডকে নিয়ে পেত্রার উদ্দেশে রওনা করল। প্রায় বেশ কিছুদিন মরুভূমি দিয়ে পার করার পর তারা একসময় একটি সরু গিরিখাতের নিকট এসে পৌঁছালেন । গিড়িখাতটি দেখেই বুঝতে পারলেন যে এখানেই পেত্রা অবস্থিত। গিরিখাতটির দুই পাশে উঁচু উঁচু পাহাড় আর মাঝ বরাবর সরু রাস্তা, আর সেই গিরিখাতের মাঝ দিয়েই পৌঁছে গেলেন প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী এ নগরীটিতে । আর তার মাধ্যমেই আধুনিক বিশ্ব পেত্রা সম্পর্কে আবার জানতে পারল ।




পরবর্তীতে ১৯৮৫ সালে ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হিসেবে ঘোষণা করেছে পেত্রাকে। এ ঘোষণায় পেত্রাকে বলা হয়েছে “মানব সভ্যতার সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের সবচেয়ে মূল্যবান সম্পদগুলোর একটি”। এছাড়াও ২০০৭-এ পৃথিবীর নতুন সাতটি সপ্তাশ্চযের মধ্যে জায়গা করে নিয়েছে পেত্রা। বর্তমানে প্রতিবছর প্রায় ১ মিলিয়ন এর মত ট্যুরিস্ট এই ঐতিহ্যবাহী নগরীটিতে ঘুরতে যান।

Comments


bottom of page